পিতার বিরুদ্ধে চার কন্যাকে নির্যাতনের অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন

খাগড়াছড়ি প্রতিনিধি

খাগড়াছড়ির দীঘিনালার চংড়াছড়ি এলাকায় সৎ মায়ের কুপরামর্শে পিতা কর্তৃক চার কন্যাকে নির্যাতন, হয়রানি, মামলা ও ঘর থেকে বের করে দেওয়ার প্রতিবাদে সংবাদ সম্মেলন করেছে চার কন্যা। ১১ মে (বুধবার) বেলা ১১ টায় খাগড়াছড়ির দীঘিনালার হোটেল ইউনিটি কনফারেন্স রুমে সংবাদ সম্মেলনে উপজেলার মেরুং ইউনিয়নের চংড়াছড়ি এলাকার মৃত মোকসেদ আলী হাওলাদার’র পুত্র পিতা সোহরাব হোসেন সওদাগরের বিরুদ্ধে এসব অভিযোগ তুলে ধরেন তারই কন্যা মারুফা আক্তার, খাদিজা আক্তার, জেসমিন আক্তার ও সুমাইয়া আক্তার। সংবাদ সম্মেলনে দ্বিতীয় কন্যা খাদিজা আক্তার অভিযোগ করে বলেন, আমাদের মা পরিতন নেছা গত ১৯ বছর পূর্বে ইন্তেকাল করেন৷ মায়ের মৃত্যুর এক মাস পর আমার পিতা সোহরাব হোসেন সওদাগর আমার আপন খালা ফাতিমা আক্তারকে বিয়ে করেন৷ উনার গর্ভে দুই পুত্র সন্তান জন্ম নেয়৷ দুই পুত্র সন্তান জন্ম নেওয়ার পর থেকেই সৎ মায়ের কুপরামর্শে পিতা আমাদেরকে দিনদিন অবহেলা করতে শুরু করে৷ আমার বড়বোন মারুফা আক্তারের বিয়ের কিছুদিন পর আমার সৎমায়ের সেলাই মেশিন ধরাকে কেন্দ্র করে আমাকে রড দিয়ে বেধড়ক মারধর করে এবং আমার বইখাতা পুড়িয়ে দেয়। এসময় আমি আমাদের বাড়ির পার্শ্ববর্তী চংড়াছড়ি আর্মি ক্যাম্পে আশ্রই নেই৷ যা সামাজিক বিচারকগণ অবগত। গত ৮ বছর পূর্বে আমার পিতা আমাদের তিন বোনকে ঘর থেকে বের করে দেয়। পরবর্তীতে আমার বড়বোন মারুফা আক্তার ও তার স্বামী ফজলুল করিম আমাদেরকে আশ্রয় দেয় এবং আমাদেরকে পড়ালেখার যাবতীয় খরচ বহন করে। এসময় তিনি আরও বলেন, সম্প্রতি আমি খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ হতে স্নাতকোত্তর শেষ করেছি। আমার ছোটবোন জেসমিন আক্তার দীঘিনালা সরকারি ডিগ্রি কলেজ হতে স্নাতক পাশ করেছে। পাশাপাশি আমার ছোটবোন সুমাইয়া আক্তার দীঘিনালা সরকারি ডিগ্রি কলেজ হতে এইচএসসি পাশ করেছে। আমার ছোটবোন জেসমিন আক্তারকে গত ৭ বছর আগে আমার পিতা রড দিয়ে মারধর করে। এসময় ওর একটি হাত বিকলঙ্গ হয়ে যায়। পাশাপাশি এককানে কম শুনতে শুরু করে। আমার পিতা বিভিন্ন সময়ে আমাদের চরিত্র নিয়ে সমাজে কুৎসা রটিয়ে আমাদের বিবাহ ভেঙে দেয়। সম্প্রতি চংড়াছড়ি আর্মি ক্যাম্প সংলগ্ন একটি খাস ভুমিতে আমার বড়বোন মারুফা আক্তার ও ভগ্নিপতি ফজলুল করিম একটি ঘর নির্মাণ করতে গেলে আমার পিতা তার দ্বিতীয় সংসারের স্ত্রী ও সন্তানদের নিয়ে আমার ভগ্নিপতিকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে যখম করে। আমার পিতা আমার সৎ মায়ের কুপরামর্শে আমাদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে নির্যাতন, হয়রানি, মামলার পাশাপাশি পৈতৃক সম্পত্তি থেকে বঞ্চিত করছে। আমরা প্রাপ্ত বয়স্ক তিন বোন বর্তমানে নিরুপায়। আমাদের পিতা আমাদেরকে সন্তান হিসেবে স্বীকারও করেনা। আমরা আমাদের অধিকার চাই। এ বিষয়ে প্রশাসন, জনপ্রতিনিধি ও সচেতন ব্যক্তিদের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.