প্রবাসীর স্ত্রীকে ‘ভাগিয়ে নেওয়ার’ অভিযোগ পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে 

জাপান প্রবাসীর স্ত্রীকে নিয়ে পালিয়ে যাওয়ার অভিযোগ উঠেছে রিমন বড়ুয়া নামের এক পুলিশ সদস্যের বিরুদ্ধে। তিনি কুমিল্লা হাইওয়ে  পুলিশ সুপার কার্যালয়ে কর্মরত রয়েছেন।

বুধবার (১৮ মে) বিকেলে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে এই অভিযোগ জানান ভুক্তভোগী প্রবাসী সুকুমার বড়ুয়া।

লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, ২০০৪ সালের ৮ নভেম্বর তারা পারিবারিকভাবে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। বর্তমানে তাদের সংসারে ১৭ বছরের এক মেয়ে ও ১১ বছরে এক ছেলে রয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে জাপানে অবস্থান করার সুবাদে তার স্ত্রীর সঙ্গে অনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তুলেন পুলিশ কনস্টেবল রিমন বড়ুয়া। একপর্যায়ে তারা অবৈধভাবে শারীরিক সম্পর্কেও লিপ্ত হয়।

সুকুমার বড়ুয়া বলেন, ‘আমার স্ত্রীর সঙ্গে রিমনের অবৈধ মেলামেশার বিষয়টি ছেলে-মেয়েরা দেখে ফেলেন। মুঠোফোনে বিষয়ের তারা আমাকে অবহিত করেন। এরপর আমি দেশে এসে রিমনকে আমার সংসার না ভাঙার অনুরোধ করি। একাধিকবার বলার পর রিমন বিষয়টি আমলে নেয়নি। উল্টো র‍্যাবে চাকরি করার সুবাদে তিনি আমাকে ক্রসফায়ারে হত্যা করবে বলে হুমকি দেয়।’

সুকুমার অভিযোগ করেন, সবশেষ গত ১ মার্চ রিমন আমার স্ত্রীকে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম নিয়ে যায়। এ বিষয়ে রাজধানীর সবুজবাগ থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি হয়। দুদিন অজ্ঞাত স্থানে রাখার পর ৩ মার্চ রিমন আমার স্ত্রীকে ঢাকায় পাঠিয়ে দেন। এরপর ২২ মার্চ পুনরায় নগদ ২০ লাখ টাকা ও স্বর্ণালংকারসহ আমার স্ত্রীকে রিমন নিয়ে যায়। সেই থেকে আমার স্ত্রীর আর খোঁজ পাওয়া যাচ্ছে না।’

সংবাদ সম্মেলনে ভুক্তভোগী সুকুমারের মেয়ে রিদ্দী বড়ুয়া বলেন, ‘পুলিশ সদস্য রিমন বড়ুয়া আমার বাবা ও আমাদেরকে ক্রসফায়ার দিয়ে মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। আমরা কয়েকমাস ধরেই মাকে পাচ্ছি না। আমরা আমাদের মাকে ফেরত চাই।’

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.