আইআইইউসি সকল ধর্মের ও বর্ণের দেশী ও বিদেশী শিক্ষার্থীদের জন্য উম্মুক্ত

আইআইইউসি বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী বলেন, ১৯৯৫ সালে প্রতিষ্ঠালগ্ন থেকেই আন্তর্জাতিক ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয় চট্টগ্রাম (আইআইইউসি) এর সাথে ছিলাম। আরবী ভাষা ইনস্টিটিউট দিয়েই বিশ্ববিদ্যালয়ের যাত্রা শুরু হলেও পরবর্তীতে কুরানিক সাইয়েন্স, হাদিস, দাওয়া এন্ড ইসলামিক স্টাডিজ বিভাগের পাশাপাশি বিজ্ঞান, প্রকৌশল ও প্রযুক্তি, ব্যবসা প্রশাসন, সামাজিক বিজ্ঞান এবং মানবিক ও কলা অনুষদীয় বিষয়ের বিভিন্ন বিভাগ চালু হয়। ইসলামী মূল্যবোধকে সমুন্নত রেখে বাংলাদেশের সংবিধানের সাথে সামঞ্জস্য রেখে এই বিশ্ববিদ্যালয়ে সকল ধর্মের ও বর্ণের দেশী ও বিদেশী ছাত্র-শিক্ষকের সমন্বয়ে শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এখানে চমৎকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিরাজমান। বিগত বছর গুলোতে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে সরকারের একটা দূরত্ব ছিল। বর্তমান হাই প্রোফাইল ট্রাস্টি বোর্ড মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা মোতাবেক আইআইইউসি’র সার্বিক উন্নয়নে কাজ করে যাচ্ছে। নতুন নতুন বিভাগ খোলার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। শিক্ষার গুণগত মানের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের নব্বই শতাংশ শিক্ষক বিদেশি ডিগ্রিধারী। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-ছাত্ররা বিশেষ গোষ্ঠী দ্বারা পরিচালিত মর্মে যে ধারণা বাজারে প্রচলিত রয়েছে তাকে সম্পূর্ণ ভিত্তিহীন উল্লেখ করে তিনি বলেন, আইআইইউসি’তে সম্পূর্ণ মুক্ত পরিবেশে অত্যন্ত মান সম্মত শিক্ষার পরিবেশ বিরাজমান। তিনি বলেন, আইআইইউসি’র শিক্ষার্থীদের মাঝে বঙ্গবন্ধু এবং মহান মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস তুলে ধরার লক্ষ্যে মুজিব কর্ণার স্থাপন এবং ‘বঙ্গবন্ধু রিসার্চ সেন্টার ফর ইসলাম এন্ড ইন্টাররিলিজিয়াস ডায়ালগ’ মতো গবেষণা প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করা হয়েছে এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী ও বিভিন্ন জাতীয় দিবস বর্ণাঢ্যভাবে পালিত হচ্ছে। আইআইইউসি’তে অধ্যয়নরত সনাতনী ধর্মের শিক্ষার্থীরা আজ ২৫ মে বুধবার বোর্ড অব ট্রাস্টিজের চেয়ারম্যান প্রফেসর ড. আবু রেজা মুহাম্মদ নেজামুদ্দিন নদভী এমপি’র সাথে সাক্ষাৎ ও ক্রেস্ট প্রদানকালে তিনি উপরোক্ত কথা গুলো বলেন। এসসয় উপস্থিত ছিলেন আইআইইউসি বোর্ড অব ট্রাস্টিজের ভাইস চেয়ারম্যান প্রফেসর কাজী মোহাম্মদ দীন মোহাম্মদ।

মন্তব্য করুন

Your email address will not be published.